ধাপে ধাপে নেদারল্যান্ডসে উচ্চশিক্ষা
June 14, 2017
All about Statement of purpose (SOP)
June 17, 2017

হাঙ্গেরিতে উচ্চশিক্ষা

সংক্ষেপে দেশ পরিচিতিঃ

হাঙ্গেরি ইউরোপের কেন্দ্রে অবস্থিত একটি সেঞ্জেনভুক্ত দেশ, যার আশেপাশের দেশগুলি হচ্ছে অস্ট্রিয়া, স্লোভাকিয়া, ইউক্রেন, রোমানিয়া, সার্বিয়া, ক্রোয়েশিয়া ও স্লোভেনিয়া। দেশটির রাজধানী বুদাপেস্ট, যেখানে প্রায় ১,৭০০,০০০ জন লোকের বাস এবং এটি হাঙ্গেরির সবচেয়ে বড় শহর। হাঙ্গেরির আয়তন ৯৩,০৩০ বর্গ কিঃমিঃ এবং লোকসংখ্যা ৯,৮৩০,৪৮৫। দেশটির মুদ্রার নাম ফরিন্ট(এইচইউএফ) এবং অফিসিয়াল ভাষা হাঙ্গেরিয়ান। দেশটিতে অসংখ্য হ্রদ রয়েছে, এদের মধ্যে লেক বালাটন ও লেক ভেলেঞ্চ সবচেয়ে বৃহত্তম হ্রদ। হাঙ্গেরি OECD, NATO, EU এবং Schengen এর সদস্যভুক্ত দেশ।

 

উচ্চশিক্ষা সংক্রান্ত তথ্যঃ 

হাঙ্গেরির শিক্ষার মান বেশ ভাল এবং হাঙ্গেরির ডিগ্রির গ্রহণযোগ্যতা সর্বত্র। কিছু বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে যেগুলো বিশ্ব রেঙ্কিংয়ে অনেক এগিয়ে। এখানে ব্যাচেলর, মাস্টার্স, পিএইচডি ও বিভিন্ন শর্ট কোর্স অফার করে থাকে। ব্যাচেলর কোর্স (৩-৪ বছর মেয়াদী), মাস্টার্স কোর্স (১-২ বছর মেয়াদী), পিএইচডি/ডক্টোরাল কোর্সগুলো ৩-৫ বছর মেয়াদী হয়ে থাকে। বেশিরভাগ ব্যাচেলর কোর্স হাঙ্গেরিয়ান ভাষায় পড়ানো হয়, তবে মাস্টার্স ও ডক্টোরাল প্রোগ্রামগুলোতে যথেষ্ট ইংরেজি মাধ্যম রয়েছে। ব্যাচেলর লেভেলেও ইংরেজি মাধ্যমের কোর্স রয়েছে।

কিছু টপ ইউনিভার্সিটিঃ

১। Budapest University of Technology and Economics

২। Eötvös Loránd University Budapest

৩। University of Szeged

 

ইউনিভার্সিটিতে আবেদন, সময় ও প্রক্রিয়াঃ

হাঙ্গেরিতে অসংখ্য বিষয়ে পড়ার সুযোগ রয়েছে। আপনি খুব সহজেই আপনার পছন্দের বিষয় খুঁজে নিতে পারেন, এমনকি ইউনিভার্সিটি ও। এছাড়া হাঙ্গেরিয় ইউনিভার্সিটিগুলো আন্তর্জাতিক শিক্ষার্থীদের প্রতি বছর বিভিন্ন ধরণের স্কলারশিপের সুযোগ দিয়ে থাকে। আবেদনের জন্য আইইএলটিএস ৫.৫ বা তার বেশি থাকতে হয়। এটা ইউনিভার্সিটি ও কোর্সের উপর নির্ভর করে।

প্রোগ্রাম খুঁজুনঃ এখানে ক্লিক করুন ।

ইউনিভার্সিটি খুঁজুনঃ এখানে ক্লিক করুন এবং প্রয়োজনীয় ফিল্টারগুলো পূরণ করুন 

স্কলারশিপ খুঁজুনঃ এখানে ক্লিক করুন ।

আবেদনের সময় ও প্রক্রিয়াঃ 

হাঙ্গেরিতে সাধারণত বছরে ২ বার আবেদন করা যায়। একটি হল  এপ্রিল থেকে ১ জুলাই এবং অপরটি ১ অক্টোবর থেকে ১ ডিসেম্বর। সময় পরিবর্তিত হতে পারে। তাই, সাম্প্রতিক তথ্যের জন্য ইউনিভার্সিটির ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

আবেদনের জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টসঃ

  • পূরণকৃত অনলাইন/অফলাইন অ্যাপ্লিকেশান ফর্ম
  • এসএসসি – ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট (যদি চায়)
  • এইচএসসি ও এসএসসি – ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট
  • ব্যাচেলর – ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট (মাস্টার্স এর জন্য)
  • মাস্টার্স –  ট্রান্সক্রিপ্ট ও সার্টিফিকেট (পিএইচডি এর জন্য, যদি চায়)
  • ইংলিশ প্রফিসিয়েন্সি সার্টিফিকেট (আইইএলটিএস/টুএফেল)
  • মোটিভেশন লেটার (যদি চায়)
  • সিভি (যদি চায়)
  • কাজের অভিজ্ঞতার সনদপত্র (যদি চায়)
  • গবেষণাপত্র/রিসার্চ পেপার (যদি চায়)
  • অ্যাপ্লিকেশান ফি পরিশোধের রশিদ (যদি চায়)

বিঃদ্রঃ শিক্ষা সনদপত্র ও কাগজগুলো সংশ্লিষ্ট জায়গা থেকে সত্যায়ন করতে হবে, যদি ইউনিভার্সিটি চায়। বিস্তারিত ইউনিভার্সিটির ওয়েবসাইট থেকে দেখে নিবেন।

উপরিউক্ত কাগজগুলো সহ অ্যাপ্লাই করার পর ইউনিভার্সিটি আপনাকে চাইলে অনলাইন পরীক্ষা নিতে পারে। আপনার পরীক্ষা ও একাডেমিক, অন্যান্য যোগ্যতা বিবেচনা করে আপনাকে ভর্তির ফলাফল জানাবে। যদি ভর্তির জন্য নির্বাচিত হন তাহলে তাঁরা আপনাকে একটি শর্তসাপেক্ষ পত্র (কন্ডিশনাল অফার লেটার) দিবে। যেখানে আপনাকে কিছু  নির্দেশনা (টিউশন ফি + ব্যাংক একাউন্ট তথ্য) থাকবে। আপনি টিউশন ফি পাঠালেই কেবল অরিজিনাল অফার লেটার পাবেন।

টিউশন ফিঃ টিউশন ফি প্রতি সেমিস্টারে ২৫০০ ইউরো থেকে ১০,০০০ ইউরো পর্যন্ত হতে পারে। এটা নির্ভর করে ইউনিভার্সিটি, কোর্স ও লেভেল এর উপর।

 

 

 

ভিসা সংক্রান্ত তথ্যঃ 

বাংলাদেশে হাঙ্গেরিয়ান এমব্যাসি না থাকায় ভিসার আবেদনের জন্য আপনাকে ভারতের নয়া দিল্লিস্থ হাঙ্গেরিয়ান এমব্যাসিতে যেতে হবে। ভিসা প্রক্রিয়া সম্পন্ন হতে ২ সপ্তাহ থেকে ১২ সপ্তাহ পর্যন্ত লাগতে পারে। উল্লেখ্য, আপনি প্রথমে ৩০ দিনের ভিসা পাবেন। হাঙ্গেরিতে যাওয়ার পর ভিসা বাড়াতে হবে।

ভিসার জন্য প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টসঃ

  • ভিসা/রেসিডেন্স পারমিট অ্যাপ্লিকেশান ফর্ম
  • ইউনিভার্সিটির অফার লেটার
  • সকল একাডেমিক ডকুমেন্টস (অবশ্যই সত্যায়িত)
  • বৈধ পাসপোর্ট (কমপক্ষে ১ বছরের মেয়াদ থাকতে হবে)
  • ২ কপি ছবি
  • ভিসা ফি ৬০ ইউরো
  • ট্র্যাভেল মেডিকেল ইন্স্যুরেন্স
  • আর্থিক সচ্ছলতার প্রমাণাদি
  • স্পন্সরের যাবতীয় ডকুমেন্টস (স্পন্সরশিপ সম্পর্কে পড়ুন এখানে )

ডকুমেন্ট চেকলিস্ট ডাউনলোড করুনঃ এখান থেকে ।

বিঃদ্রঃ সত্যায়ন সংক্রান্ত তথ্যের জন্য হাঙ্গেরিয়ান এমব্যাসির ওয়েবসাইট ভিজিট করুন।

 

পার্ট টাইম জব ও থাকা-খাওয়ার খরচঃ

হাঙ্গেরিতে সপ্তাহে সর্বোচ্চ ২৪ ঘণ্টা কাজের অনুমতি আছে। কাজের সুবিধা তেমন ভাল না। কাজ পেলেও সেটা দিয়ে নিজের খরচ চালাতে পারলেও টিউশন ফি ব্যবস্থা করতে পারবেন না। যদি খুব ভাল জব ও পান সেটা দিয়ে হয়তো নিজের খরচ সহ টিউশন ফি’র (২০-৩০)% ব্যবস্থা হবে। তাই, কাজ করে সব দেওয়ার চিন্তা থাকলে হাঙ্গেরিকে পছন্দ না করাই ভাল। আর কাজ পাওয়ার ক্ষেত্রে বরাবরের মতই ভাষা একটা বড় ফ্যাক্ট। হাঙ্গেরিয়ান ভাষা জানা থাকলে সুবিধা পাবেন।

আপনার জন্য শুভ কামনা রইল 🙂 ।

 

কিছু গুরুত্বপূর্ণ লিঙ্কসঃ

উচ্চশিক্ষার পোর্টালঃ http://studyinhungary.hu/

এমব্যাসিঃ http://www.mfa.gov.hu/kulkepviselet/IN/en/

 

লেখকঃ মেহেদী হাসান

ফেসবুক মন্তব্য
Mahedi Hasan
Follow Me

Mahedi Hasan

স্বপ্নদর্শী ও ভ্রমণপিপাসু একজন মানুষ। নতুন কিছু শিখতে ও জানতে ভাল লাগে। নিজে যা জানি সেটা সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করি।
Mahedi Hasan
Follow Me
 
শেয়ার করুনঃ
Mahedi Hasan
Mahedi Hasan
স্বপ্নদর্শী ও ভ্রমণপিপাসু একজন মানুষ। নতুন কিছু শিখতে ও জানতে ভাল লাগে। নিজে যা জানি সেটা সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *