হাঙ্গেরিতে স্কলারশিপ ‘স্টাইপেন্ডিয়াম হাংগেরিকাম’

হাংগেরি সরকার ২০১৩ সাল থেকে স্টাইপেন্ডিয়াম হাংগেরিকাম স্কলারশিপ চালু করে আসছে। যদিও বাংলাদেশে গতবছর থেকে শুরু হয়েছে। এই স্কলারশিপের অধীনে অনার্স, মাস্টার্স ও পিএইচডি করা যাবে।
গত বছর বাংলাদেশ থেকে প্রাথমিক পর্যায় ১৪০ জন মনোনয়ন দেয়া হয়েছে এবং ইউনিভার্সিটির ভর্তি পরিক্ষা ও ওয়েটিং লিস্টের ভিত্তিতে সর্বশেষ ১০০ জন কে এই বৃত্তি দেয়া হয়েছে। কিন্তু এবছর কোনো সংখ্যা উল্লেখ করে না দেয়ায় কিছু বলা যাচ্ছেনা।
আপনারা জানেন ইতোমধ্যে মিনিস্ট্রির সার্কুলার হয়ে গেছে এবং আবেদনের ক্ষেত্রে সমস্ত কাগজপত্র বাংলাদেশ শিক্ষামন্ত্রনালয়ে জমা দিতে হবে।



আজকে বিস্তারিত লিখব কিভাবে অ্যাপ্লাই করবেন এবং মিনিস্ট্রিতে জমা দিবেন।
আগেই জেনে নেয়া যাক এই স্কারশিপের সুবিধা কি কি:
০১। টিউশন ফি ফ্রি।
০২। মাসিক ভাতা – অনার্স ও মাস্টার্স পর্যায়ে প্রায় ২৫ হাজার টাকার মত তবে পিএইচডি হোল্ডারদের জন্য ৪৫ হাজারের মত।
০৩। হেলথ ইনসুরেন্স।
আবেদনের যোগ্যতাঃ
০১। বয়স ১৮ হতে হবে।
০২। এইচএসসি/আলিম পাস হতে হবে।
প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টসঃ
০১। ছবি
০২। পাসপোর্ট (এখন না থাকলেও ১লা আগস্ট ২০২০ এর মধ্যে আপলোড করলেই চলবে।)
০৩। অ্যাকাডেমিক সকল সার্টিফিকেট
০৪। অ্যাকাডেমিক সকল মার্কশিট
০৫। মোটিভেশন লেটার
০৬। IELTS সার্টিফিকেট। ণুন্যতম ৫.৫ , তবে সাব্জেক্ট ও ইউনিভার্সিটি ভেদে ভিন্ন হবে। অ্যাপ্লাই করার আগে অবশ্যই চেক করে নিবেন।
*বিঃদ্রঃ যদি আপনার একান্তই আইয়েল্টিএস নেই সেক্ষেত্রে চেক করে দেখবেন যে সব ইউনিভার্সিটিতে আইয়েল্টস লাগে না, এগুলায় অ্যাপ্লাই করতে পারবেন।
০৭। পুলিশ ক্লিয়ারেন্স।
০৮। মেডিকেল সার্টিফিকেট। ফরমেটঃ https://bit.ly/37tVIbZ



যেভাবে আবেদন করবেনঃ
১ম পর্যায়ঃ
প্রথমে এই লিংকে গিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলতে হবে https://bit.ly/35g3Dbc
এরপরে আপনার কান্ট্রি সিলেক্ট করুন।
  • আপনার ব্যক্তিগত সকল তথ্য দিন।
  • শিক্ষাগত যোগ্যতা যা চাইবে তা সঠিক ভাবে পুরন করুন।
  • মোটিভেশন লেটার লিখুন, (কপি পেস্ট করা থেকে দূরে থাকুন)
  • ল্যাঙ্গুয়েজ প্রফিসিয়েন্সি দিন।
  • একসাথে দুটি ইউনিভার্সিটি ও ভিন্ন ভিন্ন দুটি সাব্জেক্ট সিলেক্ট করা যাবে।
  • বাংলাদেশীদের জন্য কি কি সাব্জেক্ট আছে তা চেক করতে এই লিংকে যানঃ https://bit.ly/34bjOq3
আপনার পছন্দের সাব্জেক্ট ও ইউনিভার্সিটি চেক করুনঃ https://bit.ly/348dkbn
  • সর্বশেষে আপনার সকল ডকুমেন্টস আপলোড করুন।
কিছু জিনিস আগে পরেও হতে পারে। সমস্যা নেই, সময় নিয়ে ধৈর্য ধরে ফিল আপ করুন। কোনো কিছু না বুঝলে স্ক্রিনশট সহ কমেন্ট করুন।
যদি মনে হয় কোনো কিছু ভুল হয়ে গেছে তাহলে ঘাবড়াবেন না। সাবমিট করার আগে অ্যাপ্লিকেশন ইডিট করা যাবে । নির্ভুল ভাবে পুরন করার পর সাবমিট করুন।
এই ফর্মটির প্রিন্ট নিয়ে রাখুন।
আবেদনের প্রাথমিক পর্যায় শেষ।



২য় পর্যায়ঃ
এখন উক্ত লিংকে যান https://bit.ly/2KEILT2
  • প্রথমে আপনার প্রোগ্রামের নাম লিখুন ( অনার্স, মাস্টার্স, পিএইচডি – আগের ওয়েব সাইটে যেভাবে পুরন করেছিলেন)
  • এরপরে সাব্জেক্টের নাম দিবেন
  • ব্যক্তিগত তথ্য
  • শিক্ষাগত যোগ্যতা ।
  • রেজাল্টের পার্সেন্টেজ হিসেব করার জন্য ৫ স্কেলে হলে ১৬ দিয়ে গুন করবেন, যেমন জিপিএ ৪.৫৬*১৬=.৭২.৯৬ । আবার ৪ স্কেলে হলে ২০ দিয়ে গুন করবেন, যেমন ৩.৫০*২০= ৭০
  • সবশেষে আপনার সাদাকালো ব্যাকগ্রাউন্ডের পাসপোর্ট সাইজের আপনার একটি ছবি আপলোড করে সাবমিট করুন
এবার অ্যাকাউন্ট অ্যাক্টিভ করতে হবে। অ্যাক্টিভেশনের জন্য ইমেইলে লিংক ও পাসওয়ার্ড পাঠানো হয়। ইমেইল না পেলে Junk/spam ফোল্ডার চেক করুন।
অ্যাকাউন্ট অ্যাক্টিভ করা হলে উক্ত ফর্মটি ডাউনলোড করে প্রিন্ট করুন। সাথে একটি সাদাকালো ছবি যুক্ত করুন।
৩য় পর্যায়ঃ
এটি হচ্ছে আপনার আবেদনের সর্বশেষ ধাপ। আপনি যে যে ডকুমেন্টস মন্ত্রনালয়ে সাবমিট করবেন তার একটা লিস্ট তৈরি করে প্রিন্ট করে নিন।
চেকলিস্ট এভাবে সাজানঃ
  • অ্যাকাডেমিক সনদ ও মার্কশিট
  • আইয়েল্টিএস
  • মোটিভেশল লেটার
  • বাকি সব এক এক করে…। (পাবলিকেশন, রিসার্চ পেপার , এক্সট্রা কারিকুলার যা আছে দিয়ে দিবেন।)



ডকুমেন্টস যেভাবে সাজাবেনঃ
  • মিনিস্ট্রির অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম সবার উপরে দিন ( অবশ্যই সাথে এক কপি ছবি অ্যাটাচ করে দিবেন)।
  • স্টাইপেন্ডিয়ামের অ্যাপ্লিকেশন ফর্মের প্রিন্ট কপি।
  • চেকলিস্ট
  • চেকলিস্ট অনুযায়ী সকল ডকুমেন্টস সাজান এবং পেইজর উপরে নং দিন। ( আপনার সব ডকুমেন্টস যেমন, সনদ, মার্কশিট, আইয়েল্টস এগুলা সব ফটোকপি দিবেন)

উক্ত সকল ডকুমেন্টস একটি খামে ভরে আটা দিয়ে লাগিয়ে দিবেন। এই খামটি নিচের ঠিকানায় জমা দিতে হবে।

প্রাপকের ঠিকানা-
যুগ্নসচিব (বৃত্তি)
মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ
শিক্ষা মন্ত্রণালয়,
বাংলাদেশ সচিবালয় , ঢাকা।

আবেদনপত্র সচিবালয়ের ২ নং গেট সংলগ্ন অভ্যর্থনা কক্ষের ৯নং কাউন্টারে সকাল ১০.টা থেকে ১১.০০টা এবং বিকাল ৩.৩০টা থেকে ৪.৩০টার মধ্যে যে কোন সময়ে জমা দেয়া যাবে। জমা দেয়ার শেষ তারিখ ১৯ জানুয়ারি ২০২০ বিকাল ৪ টা। তবে অনলাইনে আবেদনের শেষ সময় ১৫ জানুয়ারি ২০২০। খামের উপর প্রাপক, প্রেরক, আইডি/ট্র্যাকিং নাম্বার, প্রোগ্রামের নাম লিখতে হবে।

বিঃদ্রঃ যে সকল ডকুমেন্টস অনলাইনে আপলোড করবেন সেগুলোর অবশ্যই হার্ডকপি জমা দিতে হবে, নয়তো আপনার আবেদন বাতিল বলে গন্য হবে।
গতবছর পুলিশ ক্লিয়ারেন্স বাধ্যতামূলক ছিলো না কিন্তু এবার বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। এটা ছাড়া আবেদন অসম্পুর্ন। অসম্পুর্ন আবেদন কখনো গ্রহণযোগ্য নয়।



ইউনিভার্সিটি ও সাব্জেক্ট সিলেক্ট করা আপনার ব্যক্তিগত বিষয়। সিলেক্ট করার পুর্বে অবশ্যই গুগলে রিসার্চ করে নিবেন। বিভিন্ন সিটিতে লিভিং কস্ট ও ভিন্ন হয়। লিভিং কস্ট চেক করতে এখানে ক্লিক করুনঃ https://bit.ly/2Ob5GaN
এই প্রোগ্রামে এজেন্সির কোনো হাত নেই। সুতরাং কারো প্ররোচনায় মুগ্ধ হয়ে পকেট খালি করবেন না।



সবার জন্য শুভ কামনা। খুব শীঘ্রই দেখা হচ্ছে ইনশা আল্লাহ।
Stipendium Hungaricum Awardee.
University of Debrecen, Hungary.
E-mail: muhaimin@mailbox.unideb.hu
নভেম্বর ২২, ২০১৯ ইং
ফেসবুক মন্তব্য
Print Friendly, PDF & Email
Mahedi Hasan
 
শেয়ার করুনঃ
Avatar

Mahedi Hasan

স্বপ্নবাজ ও ভ্রমণপিপাসু একজন মানুষ। নতুন কিছু জানতে ও শিখতে ভালো লাগে। নিজে যা জানি তা সবার মাঝে ছড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করি। আমার সম্পর্কেঃ http://www.hmahedi.com

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *